‘লবিস্ট’ নিয়োগের টাকা কোত্থেকে এসেছে: কাদের

শুক্রবার সকালে রাজধানীর ধানমণ্ডিতে আনোয়ার খান মডার্ন মেডিকেল কলেজের ১০ বছরপূর্তি অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

যুক্তরাষ্ট্রে তদবির চালাতে বিএনপির ‘লবিস্ট’ নিয়োগের জন্য টাকা কোত্থেকে এসেছে তা জানতে চেয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

শুক্রবার সকালে রাজধানীর ধানমণ্ডিতে আনোয়ার খান মডার্ন মেডিকেল কলেজের ১০ বছরপূর্তি অনুষ্ঠানে তিনি এ প্রশ্ন রাখেন।

বাংলাদেশের সাধারণ নির্বাচন সামনে রেখে যুক্তরাষ্ট্রের ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রশাসনে তদবির চালাতে বিএনপি ওয়াশিংটনে একটি ‘লবিং ফার্ম’ ভাড়া করেছে বলে খবর দিয়েছে রাজনীতিবিষয়ক ম্যাগাজিন পলিটিকো।

অনুষ্ঠানে বিষয়টি দৃষ্টি আকর্ষণ করলে ওবায়দুল কাদের বলেন, সব আন্দোলন ব্যর্থ হয়ে এখন কমপ্লেইন করতে জাতিসংঘে গেছেন বিএনপির কয়েকজন নেতা। এতে আমাদের কোনো আপত্তি নেই।

‘কিন্তু একটি বিষয়ে আমাদের আপত্তি আছে। ওয়াশিংটনে দুটি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে লবিংয়ের জন্য তারা চুক্তি বদ্ধ হয়েছেন। একবার ২০ হাজার ডলার, আবার প্রতি মাসে ৩৫ হাজার ডলারের বিনিময়ে লবিস্ট নিয়োগ করেছেন। এটি কি তারা পারেন, এটির কি কোনো প্রযোজন আছে।’

তিনি বলেন, বাংলাদেশ কি পাকিস্তান? বাংলাদেশ কি আফগানিস্তান? বাংলাদেশ কি সুদান বা সাউথ সুদান? বাংলাদেশ কি সোমালিয়া বা ইরাক? এখানকার সমস্যা আমরা এখানেই সমাধান করব।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, লবিস্ট নিয়োগ করে যুক্তরাষ্ট্রের সরকারের কাছে লবিং করবে আমাদের ওপর চাপ দেয়ার জন্য- বাংলাদেশ সরকারের ওপর।

‘আমি স্পষ্টভাবে বলতে চাই- আমাদের গণভিত এবং আমাদের শেকড় দুর্বল নয়। আমাদের শেকড় বাংলাদেশের মাটির অনেক গভীরে। আমাদের গণভিত মাটির অনেক গভীরে। আমাদের চাপ দিতে পারে বাংলাদেশের জনগণ এবং আমরা অন্য কারো চাপের কাছে নতিস্বীকার করব না।’

‘লবিস্ট’ নিয়োগের জন্য টাকা কোত্থেকে এসেছে জানতে চেয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, তারা লবিং করে সাক্ষাৎ করেছে এটি নিয়ে আমাদের কোনো মন্তব্য নেই। তবে প্রশ্ন হল- এত টাকা তারা কোথায় থেকে পায়?

‘আব্দুল সাত্তার নামে বিএনপির একজন’গত আগস্টে যুক্তরাষ্ট্রের ‘ব্লু স্টার স্ট্র্যাটেজিস’ এবং ‘রাস্কি পার্টনার্স’এর সঙ্গে চুক্তি করেন,’ যোগ করেন তিনি।

news portal website developers eCommerce Website Design