যশোর শিক্ষাবোর্ডের অভিযুক্ত কর্মচারি রাসেল পান্না সাময়িকভাবে বহিষ্কার

jessore boardস্টাফ রিপোর্টার, যশোর: ওয়ান নিউজ বিডি সহ স্থানিয় পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ হওয়ার পর যশোর শিক্ষাবোর্ডের খাতা (উত্তরপত্র) অবৈধভাবে রাখার সেই অভিযুক্ত অফিস সহকারি রাসেল পান্নাকে সাময়িকভাবে বহিষ্কার করা হয়েছে। তিনি শিক্ষাবোর্ড সংশ্লিষ্ট কোন দায়িত্বে থাকতে পারবেন না। মঙ্গলবার তাকে কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদানকরা হবে বলে নিশ্চিত করেছেন পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মাধব চন্দ্র রুদ্র।

পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক জানান, রাসেল পান্নার বিরুদ্ধে অভিযোগের বিষয়টি নিয়ে সোমবার সন্ধ্যায় শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর মোহাম্মদ আব্দুল আলীম বিভিন্ন বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত অফিসারদের নিয়ে মির্টিংয় করেন। চেয়ারম্যান স্যারের সভাপতিত্বে মির্টিংয়ে রাসেল পান্নাকে সাময়িকভাবে বহিষ্কার করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

এছাড়া আরো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে মঙ্গলবার তাকে শোকজ করা হবে। তারপর অভিযোগ যাচাই বাচাই করার জন্য তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে। তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন দাখিলা না করা পর্যন্ত তিনি সাময়িকভাবে বহিষ্কার থাকবেন।

শিক্ষাবোর্ড সূত্রে জানা গেছে, গত রোববার রাসেল পান্নার কক্ষের আলমারি থেকে চলতি উচ্চ মাধ্যমিক (এইচএসসি) পরীক্ষার বাংলা প্রথম পত্রের ১শতটি খাতা (উত্তরপত্র) উদ্ধার করেন পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের একান্ত সহকারি নজরুল ইসলাম। ঊর্ধ্বতন কোন কর্মকর্তাকে না জানিয়ে রাসেল পান্না অসৎ উদ্দেশ্যে তার কক্ষের আলমারিতে খাতাগুলি লুকিয়ে রেখেছিলেন। পরীক্ষার খাতা (উত্তরপত্র) কোন কর্মকর্তা-কর্মচারির ব্যক্তিগত রুমে ঊর্ধ্বতন কাউকে না জানিয়ে রাখার কোন নিয়ম নেই। কিন্তু সকল নিয়ম-কানুনের তোয়াক্কা না করে রাসেল পান্না বাংলা প্রথমপত্রের ১শত কপি খাতা রেখেছেন তার কক্ষের আলমারিতে। যা রাখা সম্পূর্ণভাবে অবৈধ। এই কর্মচারি জেলা শ্রমিকদলের সাংগঠনিক সম্পাদক।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন কর্মকর্তা বলেন, রাসেল পান্নার পূর্বের রেকর্ড খুববেশি ভাল না। তার নামে প্রায় বিভিন্ন ধরণের অনিয়মের অভিযোগ শোনা যায়। বড় ধরণের দুর্নীতি করার উদ্দেশ্যে হয়তো খাতা গুলো রেখেছিল। তার মিশন এ যাত্রায় ব্যর্থ হল। একে কঠোর শাস্তির আওতায় আনা প্রয়োজন। যাতে এ ধরণের কাজ সাহস পুনরায় আর না হয়।

শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর মোহাম্মদ আব্দুল আলীম বলেন, রাসেল পান্নাকে নিয়ে বোর্ডের কর্মকর্তাদের সাথে মির্টিং করা হয়েছে। অনেক গুলো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবারে লিখিতভাবে অপনারা সিদ্ধান্তগুলো জানতে পারবেন।