যশোরে পৃথক স্থানে প্রতিপক্ষের হামলায় নারীসহ আহত ৪

স্টাফ রিপোর্টার: যশোরে পৃথক স্থানে প্রতিপক্ষের হামলায় ৪ জন জখম হয়েছেন। গুরুতর অবস্থায় তাদের যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহতরা হলেন, শহরতলী পুরাতন কসবা পালবাড়ি বেহারীকলোনী এলাকার আলমের ছেলে রকি হোসেন (২০), ঘোষপাড়া এলাকার মুজিবর রহমানের ছেলে তুহিন (৪০), কাশিমপুর ইউনিয়নের নুরপুর গ্রামের কুরবান আলীর ছেলে রুবেল হোসেন (১৮) ও শহরের রায়পাড়া কলয়াপট্টি এলাকার হাসিবের স্ত্রী পারভিন খাতুন (২৫)।

jessore hamlaআহত রকি জানান, তিনি ১৪ এপ্রিল রাতে বন্ধুদের সাথে শহরের কালেক্টরেট পার্কে ঘুরতে আসেন। এ সময় রায়পাড়া কলয়াপট্টি এলাকার লাভলু নামে এক যুকবের কথাকাটাকাটি হয়। রাত ৮টার দিকে লাভলুর নেতৃত্বে ৩-৪ জন কালেক্টরেট পার্কে রকিকে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাতে জখম করে। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার হাসপাতালে ভর্তি করে।

একই দিন রাত সাড়ে ৮ ঘোষপাড়া এলাকার তুহিন বাড়ি থেকে ব্যক্তিগত কাজে ঘোষপাড়া জামে মসজিদের সামনে আসেন। এ সময় পূর্ব শত্রুতার জেরধরে স্থানীয় সস্ত্রাসী ছোট মহিনের নেতৃত্বে মফিজসহ ৩-৪ জন তুহিনকে কুপিয়ে জখম করে পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে।

এদিকে, একই দিন রাত সাড়ে ৮টার দিকে নুরপুর গ্রামের রুবেল বন্ধুদের সাথে শহরের ঘোপ ধানপট্টি এলাকাতে ঘুরতে আসেন। এ সময় একদল দুর্বৃত্ত তাকে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। তবে তার উপর হামলার কারন পরিষ্কার নন তিনি।

আবার, একই দিন বিকাল ৫টার দিকে কয়লাপট্টি এলাকার পারভিনার বাড়িতে হামলা করে কুটিয়ে জখম করে স্থানীয় অন্তর গং। আহতের দাবি, তার ছোট বোন প্রিয়াকে স্থানীয় বখাটে অন্তর নামে এক যুবক বিয়ের প্রস্তাব দিয়ে আসছিলো। পারভিনা বিরোধিতা করলে তার সাথে অন্তরের বিরোধ হয়। বিকাল পৌনে ৫টার দিকে অন্তরের নেতৃত্বে ৪-৫ জন দুর্বৃত্ত পারভিনার বাড়িতে হমলাকরে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাতে জখম করে পালিয়ে যায়। পরে পরিবারের লোকজন তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে।