খালেদা জিয়াকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবে জেলে রাখা হয়েছে : সুপ্রিম কোর্ট বার সভাপতি

joynul abedinঢাকা: বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে জেলে রাখা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন। তিনি আরও বলেন, সরকার তাদের ফরমায়েশি মোতাবেক রায় দেয়ার জন্য দেশের বিচার বিভাগকে নিয়ন্ত্রণ করছে।

মঙ্গলবার সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি ভবনের সামনে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের উদ্যোগে আয়োজিত প্রতিবাদ সভায় তিনি এসব অভিযোগ করেন।

জয়নুল আবেদীন বলেন, সকালে পত্রিকা খুলে দেখলাম দেশের ব্যাংকগুলোতে তারল্য সংকট দেখা দিয়েছে। দেশে অন্যায়ভাবে লুটপাট চলছে। দেশের সব টাকা বিদেশে পাচার করা হচ্ছে। একদিকে এভাবে যখন লুটপাট চলছে ঠিক সেই মুহূর্তে তারা খালেদা জিয়াকে কারাগারে আটকে রেখেছে।

এসব কারণে দেশ একটি খারাপ অবস্থার মধ্যে রয়েছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

জয়নুল আবেদীন বলেন, সরকার তাদের ফরমায়েশি মোতাবেক রায় দেয়ার জন্য দেশের বিচার বিভাগকে নিয়ন্ত্রণ করছে। এজন্য তারা খালেদা জিয়ার জাজমেন্ট দিতে টালবাহানা দেখাচ্ছে। আপিলে যাওয়ার জন্য তারা জাজমেন্ট দিচ্ছেন না। বরং অন্য জায়গা থেকে মামলা এনে তাকে (খালেদা জিয়া) শ্যোন অ্যারেস্ট দেখাচ্ছে।

এসব মামলা সত্ত্বেও খালেদা জিয়ার জনপ্রিয়তা তিনগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে বলেও তিনি দাবি করেন।

জয়নুল আবেদীন উপস্থিত আইনজীবীদের উদ্দেশে বলেন, আমরা আন্দোলন ও আইনী প্রক্রিয়ার মাধ্যমে তাকে (খালেদা জিয়া) বের করে আনবো। তাকে বের করে না আনা পর্যন্ত আমাদের এই কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে।

জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের মহাসচিব ব্যারিস্টার এএম মাহবুব উদ্দিন খোকনের সভাপতিত্বে উক্ত কর্মসূচিতে তৈমুর আলম খন্দকার, আসিফা আশরাফী পাপিয়াসহ শতাধিক আইনজীবীরা উপস্থিত ছিলেন। প্রতিবাদ সভা শেষে আইনজীবীরা খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে সুপ্রিম কোর্ট বার ভবনে বিক্ষোভ করেন।

অবস্থান কর্মসূচি শেষে ফোরামের পক্ষ থেকে আগামীকাল বুধবার দুপুরে সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে প্রতিকী অনশনের ঘোষণা দেয়া হয়।