জমে উঠেছে রাজগঞ্জের বিখ্যাত খেঁজুরের গুড়ের বাজার

khajur gurবিল্লাল হোসেন, রাজগঞ্জ (যশোর): প্রতি বছরের ন্যায় এবারও শীতের মৌসুমের শুরুতেই জমে উঠেছে রাজগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী খেঁজুরের গুড়ের বাজার৷

এ বাজার থেকে খেঁজুর গুড় চলে যাচ্ছে দেশের বিভিন্ন জেলা শহরসহ দেশের বাইরে৷ যশোরের খেঁজুরের রসের রয়েছে আলাদা নাম৷ সেই খেঁজুরের রস কড়ায়তে বা তাবালে করে জ্বালিয়ে তৈরি করা হয় গুড় ও পাটালী৷ খেঁজুরের গুড় যশোরের বিখ্যাত৷ রাজগঞ্জের খেঁজুর গুড়ের বাজারে গুড় বিক্রি করতে আসে এ অঞ্চলের প্রায় ২০/২৫ গ্রামের খেঁজুর গাছের গাছিরা৷

এ বাজারে খেঁজুরের গুড় বিক্রি করতে আসা হানুয়ার গ্রামের আতিয়ার মোড়ল (৪৫) বলেল, এখনতো আগের মতো গাছ নেই৷ তাই রস এখন কম সংগ্রহ করা হয়। যা সংগ্রহ করতে পারি তাতে খরচটা কোন রকম টেকে৷ তবে গত বছরের চেয়ে এবছর বাজারে গুড়ের দাম তুলনা মুলক একটু বেশি হওয়ায় লাভের মুখ দেখতে পাবো৷

ভোলা জেলা চর ফ্যাশন থেকে আসা গুড়ের ব্যাপারী ইউচুপ আলী জানান, এবছর গুড়ের দাম বেশি, গত বছর যে গুড়ের ভাড় ছিলো ৮/ ৯শ’ টাকা, এবছর সেই গুড়ের ভাড় ১৪/১৫ শ’ টাকা৷ ব্যাপারীরা ঠিলা (ভাড়) ভর্তি গুড় কিনে প্লাস্টিকের ড্রামে ভর্তি করে দেশের বিভিন্ন জেলা শহরে সরবরাহ করে থাকে৷

রাজগঞ্জের গুড়ের বাজার সপ্তাহে সোমবার ও বৃহস্পতিবার বসে৷ স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে দেশএর বিভিন্ন জেলায় যাচ্ছে বিখ্যাত খেজুরের গুড়৷