বিষন্নতা কাটানোর উপায়

লাইফস্টাইল ডেস্ক:12 শারীরিক কর্মকাণ্ড, জীবনযাপন পদ্ধতি ,এমনকি চিন্তার যে পদ্ধতি-এসব কিছু নিয়ন্ত্রণই বিষন্নতা দূর করার প্রাকৃতিক উপায়।

যুক্তরাষ্ট্রের মনোবিজ্ঞানী আইয়ান কুক বলেন, কেউ যদি দীর্ঘদিন ধরে বিষন্নতায় ভোগেন তাহলে দৈনন্দিন জীবনে তার একটি রুটিন মেনে চলা উচিত। কুক বলেন, বিষন্নতা এমন একটি সমস্যা যা মানসিকভাবে একজনকে দুর্বল করে দেয়। কিছুই করতে পারব না, এমন একটা মানসিকতা কাজ করে তার মধ্যে। একারণে নিজের জন্য নিজেই একটা লক্ষ্য স্থির করুন। হতে পারে সেটা খুবই ছোট একটা কাজ।

নিয়মিত ব্যায়াম মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা বাড়ায়। এজন্য আপনাকে যে ম্যারাথন দৌড় দিতে হবে বিষয়টা তা নয়। সারাদিনে কিছুক্ষন হাঁটুন। এটা আপনার বিষন্নতা কাটাতে কিছুটা হলেও সাহায্য করবে।

বিষন্নতা দূর করতে স্বাস্থ্যকর খাবারের বিকল্প নেই। অনেকে আছেন বিষন্ন হলে বেশি বেশি খাবার খান। এটা করবেন না। বরং পরিমিত খাবারই আপনাকে সুস্থ হতে সাহায্য করবে। বিশেষ করে ওমেগা ৩ সমৃদ্ধ খাবার বিষন্নতা কমাতে খুবই কার্যকর।

বিষন্ন থাকলে ঘুমও ভাল হয় না। ভাল ঘুমের জন্য রাতের নির্দিষ্ট সময়ে ঘুমাতে যান এবং সকালে নির্দিষ্ট সময়ে উঠে পড়ুন। ঘুমানোর আগে টিভি , কম্পিউটার দেখা এবং মোবাইল ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন।

বিষন্নতার সঙ্গে মানসিক শক্তির সম্পৃক্ততা রয়েছে। মানসিক শক্তি বাড়াতে মেডিটেশন করুন। নিজের সঙ্গে নিজে কথা বলুন। আপনার মনে হতে পারে পৃথিবীতে আপনি সবচেয়ে খারাপ আছেন, কেউ আপনাকে ভালবাসে না, সবচেয়ে খারাপ মানুষও আপনি। কিন্তু কথাগুলো তো আসলে ঠিক না। তাই নেতিবাচক ভাবনা থেকে নিজেকে ফিরিয়ে আনুন।

বিষন্ন হলে ভিন্ন কিছু করুন। জাদুঘরে যান,পার্কের বেঞ্চিতে বসে পুরনো কোন বই পড়ুন অথবা চুপচাপ বসে থাকুন কিছুক্ষন। দেখবেন কিছুক্ষনের জন্য হলেও ভাল লাগবে। কোন কোর্সে ভর্তি হউন। অন্য কিছুতে নিজেকে ব্যস্ত রাখলে মস্তিষ্কও কিছুটা আরামবোধ করবে।

বিষন্নতা আপনাকে যাতে চেপে ধরতে না পারে এজন্য মজার কিছু করার চেষ্টা করুন। যেই কাজ করতে আপনার ভাল লাগে তাই করার চেষ্টা করুন।

কুক বলেন, চিকিৎসকের কাছে গেলে হয়তো তিনি আপনাকে মুড অন অথবা উদ্বেগ কমানোর ওষুধ দেবেন। কিন্তু সেগুলো শুরু করার আগে প্রাকৃতিক উপায়ে নিজে নিজেই এই অবস্থা থেকে বের হতে চেষ্টা করুন।

সূত্র : ওয়েব এমডি