ভারতে হেয়ার সেলোনের বিজ্ঞাপনে দুর্গার ছবি নিয়ে বিক্ষোভ

javad hamidডেস্ক রিপোর্ট: হিন্দুদের দেবী দুর্গা ছেলেমেয়েদের নিয়ে সপরিবারে তার হেয়ার সেলোনে প্রসাধনী করতে এসেছেন – এই ধরনের একটি বিজ্ঞাপন কলকাতার খবরের কাগজে বেরোনোর পর বিপাকে পড়েছেন ভারতের তারকা হেয়ার স্টাইলিস্ট জাভেদ হাবিব।

ধর্মীয় আবেগে আঘাত হানার অভিযোগে হায়দ্রাবাদ-সহ দেশের নানা প্রান্তে তার বিরুদ্ধে এফআইআর রুজু হয়েছে, হামলা চালানো হয়েছে তার বেশ কয়েকটি সেলোনেও। খবর বিবিসি।

হাবিব নিজে ওই বিজ্ঞাপনের জন্য ক্ষমা চেয়ে নিলেও বিতর্ক তাতে থামছে না – অন্য দিকে যে পশ্চিমবঙ্গে দেবী দুর্গাকে নিয়ে কার্টুন বা বিজ্ঞাপন তৈরির চল আছে, সেখানে কেন এই বিশেষ বিজ্ঞাপনটি নিয়ে আপত্তি সে প্রশ্নও উঠছে।

দুর্গাপুজোর আর মাত্র সপ্তাহদুয়েক বাকি – তার আগে কলকাতার বিভিন্ন পত্রিকায় বিজ্ঞাপন বেরিয়েছিল মা দুর্গাও জাভেদ হাবিবের সেলোনে আসেন।

লক্ষ্মী কীভাবে প্রসাধনী নিচ্ছেন বা কার্তিক কীভাবে ফেসিয়াল করাচ্ছেন, সঙ্গে ছিল তার মজার ছবিও।

কিন্তু এই বিজ্ঞাপন বেরোনোর পরই উত্তরপ্রদেশের উন্নাওতে জাভেদ হাবিব গ্রুপের সেলোনে হামলা চালায় ক্ষুব্ধ জনতা – হায়দ্রাবাদ সহ একাধিক জায়গায় এই তারকা কেশশিল্পীর বিরুদ্ধে মামলা করা হয়।

বিশ্ব হিন্দু পরিষদের নেতারা বলেন, “ভারতে হিন্দু-মুসলিম-খ্রীষ্টান সবারই ধর্মীয় অনুভূতি সমান। হিন্দুদের ধর্মীয় আবেগ কি এতই দুর্বল যে যেভাবে খুশি এসে তাদের দেবদেবীকে অপমান করে যাবেন?”

সারা দেশে জাভেদ হাবিবের সেলোন বয়কট করারও ডাক দেন তারা, বলেন তাহলেই কেবল লোকে শিখবে কীভাবে ধর্মীয় অবেগের সম্মান করতে হয়।

কট্টরপন্থী হিন্দু সংগঠন হিন্দু জাগরণ মঞ্চ এমন প্রশ্নও তোলে, জাভেদ হাবিব কি ইসলামের নবীকে তার সেলোনে নিয়ে আসার বিজ্ঞাপন ছাপতে পারবেন?

যদিও দেশের মেট্রো শহরগুলোতে আধুনিক তরুণ-তরুণীরা মোটেও এমন ভাবনার শরিক হননি। তারা কেউ বলছেন মা দুর্গা ছেলেমেয়েকে নিয়ে সেলোনে গেছেন, এটাকে স্রেফ বিজ্ঞাপন হিসেবে নেওয়াই ভাল – এর মধ্যে আর অন্য কিছু খোঁজাটা ঠিক নয়।

কেউ আবার বলছেন, মেকওভার নিতে সেলোনে যাওয়াটা আজকের দিনে অতি স্বাভাবিক একটি ঘটনা – মা-মেয়ে সবাই যাচ্ছেন, আর শুধু মা দুর্গা গেলেই দোষ?

কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রবীণ অধ্যাপিকা ও সমাজতাত্ত্বিক গায়ত্রী ভট্টাচার্য আবার মনে করিয়ে দিচ্ছেন, মা দুর্গা ও তার সন্তানদের নিয়ে বিজ্ঞাপন বা কার্টুন আঁকার ট্র্যাডিশন কিন্তু পশ্চিমবঙ্গে বহুকাল ধরেই আছে।

“সব সময়ই এগুলো হত। আমার মনে আছে ছোটবেলায় আমার আত্মীয়রা অনেকে সেই ছবিগুলো কেটেও রাখতেন। জনপ্রিয় ম্যাগাজিন আনন্দমেলার প্রচ্ছদে প্রতি বছরই মা দুর্গা ও ছেলেমেয়েদের মজার ছবি ছাপা হয়, কার্তিক সেজেগুজে সামনে দাঁড়িয়ে আছেন – শিব ওপর থেকে সব দেখছেন, এই সব। চিরকাল এগুলো ভালই লেগেছে, কখনও তো খারাপ লাগেনি।”

“আসলে আমার মনে হয় না এখানে আদৌ সহিষ্ণুতার প্রশ্ন আসে। এই জিনিসগুলোক কমিক্যাল দৃষ্টিতেই দেখা উচিত, আর সেভাবেই মানুষ এতকাল দেখে এসেছে”, বলছিলেন গায়ত্রী ভট্টাচার্য।

কিন্তু যেভাবে তার ওপর ক্রমাগত হুমকি আসছে, তাতে জাভেদ হাবিব নিজে অন্তত মানুষের সেই উদারতার ওপর ভরসা রাখতে পারেননি – বিতর্কিত বিজ্ঞাপনটির দায় বাণিজ্যিক পার্টনারের ওপর চাপিয়েও তিনি নিজে ক্ষমা চেয়ে নিয়েছেন।

সোশ্যাল মিডিয়াতে রীতিমতো ভিডিও মেসেজ পোস্ট করে তিনি বলেন, “বিজ্ঞাপনটি সরাসরি আমাদের করা নয়, এটা করেছে কলকাতাতে আমাদেরই এক ফ্র্যাঞ্চাইজি। তারা এটি প্রকাশ করার আগে আমাদের অনুমতিও নেয়নি।”

“তবু আমি বলব আমার পার্টনারের ভুল মানে আমারই ভুল – আর এটা একটা মারাত্মক ভুল। ফলে সোজাসুজি মাফ চাইছি আমি – আর কিছু করার নেই!”

তবে এর পরেও দেশের নানা প্রান্তে তার বিরুদ্ধে রুজু হওয়া মামলাতে জাভেদ হাবিবকে আগামী বেশ কিছুদিন দৌড়ঝাঁপ করতে হতে পারে।

লক্ষণীয় বিষয় হল, কলকাতায় এবারের পুজোর মরশুমেও দেবী দুর্গা বা তার ছেলেমেয়েদের নিয়ে আরও নানা বিজ্ঞাপন রমরম করে চলছে নির্বিবাদেই – কিন্তু কোপটা পড়ল শুধু জাভেদ হাবিবের ওপরেই।