যে কোনো মুহুর্তে বাংলাদেশে হামলা

ওয়ান নিউজ ডেস্ক : বাংলাদেশের সাম্প্রতিক আশঙ্কাটা কোনো জঙ্গি হামলার বিষয়ে নয়! বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যে কোনো সময়ে বাংলাদেশে সাইবার হামলা চালানো হতে পারে। আর তা হলে দেশের অনেক গুরুত্বপূর্ণ নথি ও তথ্য চলে যাবে অপরাধীদের কাছে। শুধু তাই নয়, সেই নথিগুলো থাকবে না আমাদের নাগালের মধ্যেও। আসন্ন হামলা থেকে বাঁচতে তাই আগাম সতর্কতার পরামর্শ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম কলকাতা ২৪x৭ এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, বিশ্বের অন্তত শতাধিক দেশ সম্প্রতি একযোগে সাইবার হামলার শিকার হয়েছে। যার মধ্যে রয়েছে ভারতও। কিন্তু সৌভাগ্যবশত এই হামলার শিকার হয়নি বাংলাদেশ।

তবে রেনসোমওয়্যার ভাইরাসের মাধ্যমে যে সাইবার হামলা চালানো হয়েছে সেই আশঙ্কা থেকে বাংলাদেশও মুক্ত নয়। প্রযুক্তিবিদেরা আশঙ্কা করছেন, আগাম সতর্ক না হলে ভুগতে হবে বাংলাদেশকেও।

আগাম সর্তকতা হিসেবে প্রযু্ক্তিবিদেরা তাই কম্পিউটারে থাকা সব তথ্য ব্যাকআপ করে রাখার পরামর্শ দিয়েছেন। কেননা, কম্পিউটার যদি লক হয়ে যায় তবে ডাটা উদ্ধার করা কঠিন হবে। তাছাড়া কম্পিউটার ব্যবহারকারীদের আনঅথরাইজড কোনও কিছু ব্রাউজ না করারও পরামর্শ দিয়েছেন।

শুক্রবার রাতে মার্কিন হাসপাতালগুলি প্রথম এই সাইবার হামলার শিকার হয়। পরে এই হামলা যুক্তরাজ্য, চীন, রাশিয়া, স্পেনসহ অন্তত ১০০টি দেশে চালানো হয়। সাইবার হামলায় রেনসোমওয়্যার নামক একটি ভাইরাস ব্যবহার করে অপরাধীরা। যার কারণে কম্পিউটার লক হয়ে যায়।

লক হওয়ার পাশাপাশি মনিটরে একটি বার্তাও ভেসে উঠে। যেখানে পরবর্তীতে কম্পিউটার ব্যবহার করতে ব্যবহারকারীর কাছে মুক্তিপণ দাবি করা হয়।

প্রাথমিকভাবে এই সাইবার হামলার পেছনে ‘দ্য শ্যাডো ব্রোকার্স’ নামের একটি গ্রুপ জড়িত বলে সন্দেহ করা হচ্ছে। সম্প্রতি এই গ্রুপটি মার্কিন সংস্থা এনএসএ’র হ্যাকিং টুল ফাঁস করেছিল। হামলা প্রসঙ্গে সাইবার প্রযুক্তিবিদ কেভিন বোমন্ট বলছেন, ‘এটি গুরুতর সাইবার আক্রমণ, ইউরোপ জুড়ে এভাবে সংক্রমিত হতে আগে কখনো দেখা যায়নি।’