দেশের মানুষের গড় আয়ু ৭২ বছর

Mohammad nasimওয়ান নিউজ বিডি, ঢাকা: দেশের মানুষের গড় আয়ু ৭১.৮ বছর বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে টেবিলে উত্থাপিত সংসদ সদস্য এম আবদুল লতিফের (চট্টগ্রাম ১১) এক লিখিত প্রশ্নের জবাবে তিনি এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, আমাদের দেশে নারী-পুরুষের গড় আয়ু বৃদ্ধি পেয়েছে। ২০০৫-০৬ সালে গড় আয়ু ছিল ৬৫ বছর। বর্তমানে গড় আয়ু ৭১.৮ বছর। এরমধ্যে মহিলাদের ৭৩.১ বছর এবং পুরুষের ৭০.৬ বছর।

গড় আয়ু বৃদ্ধিতে সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণের ফলে ব্যাপক সাফল্য অর্জিত হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘সংক্রামক রোগ নিয়ন্ত্রণে অভাবনীয় সাফল্য অর্জিত হয়েছে। বাংলাদেশকে বিশ্ব সংস্থা ইতোমধ্যেই পোলিও মুক্ত দেশ হিসেবে সনদ প্রদান করেছে। কুষ্ঠরোগ নির্মুল হয়েছে।’

‘নবজাতকের টিটেনাস বাংলাদেশে নেই। যক্ষা নিয়ন্ত্রণে রোগ সনাক্তকরণ ও ডটস পদ্ধতিতে চিকিৎসা প্রদান জোরদার এবং কার্যকর করা হয়েছে। এভিয়েন, সোয়াইনফ্লুসহ সকল এভিয়েন ইনফ্লুয়েঞ্জা, অ্যানথ্যাক্স, নিপাহ, ডেঙ্গুসহ সব সংক্রামক রোগ নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।’

ভবিষ্যতে বাংলাদেশে উচ্চ রক্তচাপ, ডায়বেটিস, ক্যান্সার ইত্যাদি অসংক্রামক রোগ হবে অন্যতম সমস্যা- এমন আশংকা প্রকাশ করে মন্ত্রী বলেন, ‘এ জন্য অসংক্রামক ব্যাধি নিয়ন্ত্রণকে অধিকতর গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। নেয়া হয়েছে কমিউনিটি ক্লিনিকের মাধ্যমে বিভিন্ন অসংক্রামক রোগ প্রাথমিক পর্যায়ে সনাক্তকরণের কর্মসূচি। এ কারণে দেশের মানুষের গড় আয়ু বৃদ্ধি পেয়েছে।’

দুর্যোগ ও জলবায়ু পরিবর্তনজনিত স্বাস্থ্য চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় সরকারের যথোপযুক্ত কর্মসূচি রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘যা বিশ্বের জন্য রোল মডেল হিসেবে পরিচিত।’

এম আবদুল লতিফের অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘সরকারের আন্তরিকতা ও উদারতার ফলে বাংলাদেশের ওষুধ অন্যতম শিল্প সেক্টরে পরিণত হয়েছে। দেশীয় চাহিদার শতকরা ৯৮ ভাগেরও বেশি ওষুধ বর্তমানে স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত হয়।’

দেশে উৎপাদিত বিভিন্ন ওষুধ ও ওষুধের কাঁচামাল বিশ্বের ১২৭টি দেশে রফতানি হচ্ছে জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ওষুধ রফতানির পরিমাণ ও দেশের সংখ্যা ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পাচ্ছে। ২০১৫-১৬ অর্থবছরে দেশের ৫৪টি ওষুধ কোম্পানি কর্তৃক মোট ১২৩টি দেশের ৮৩৬ কোটি ৮১ লক্ষ টাকার ওষুধ রফতানি করা হয়েছে।’