রাষ্ট্রপতির উদ্যোগে আ’লীগের সমর্থন থাকবে

obidul kaderওয়ান নিউজ, ঢাকা : নির্বাচন কমিশন (ইসি) গঠনে রাষ্ট্রপতির যে কোনো ‘ন্যায়সঙ্গত’ উদ্যোগে আওয়ামী লীগের পরিপূর্ণ সমর্থন থাকবে বলে জানিয়েছেন দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সংলাপ শেষে বুধবার সন্ধ্যা পৌনে ৭টার দিকে ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা জানান।

ওবায়দুল কাদের জানান, রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের কাছে নতুন নির্বাচন কমিশন গঠন বিষয়ে আওয়ামী লীগ চার দফা প্রস্তাব দিয়েছে। প্রস্তাবগুলো হলো-

এক. গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধানের অনুচ্ছেদ ১১৮-এর বিধান অনুযায়ী রাষ্ট্রপতি প্রধান নির্বাচন কর্মকর্তা ও অন্য কমিশনারদের নিয়োগ দেবেন।

দুই. প্রধান নির্বাচন কর্মকর্তা ও অন্য কমিশনারদের নিয়োগের ক্ষেত্রে রাষ্ট্রপতি যা উপযু্ক্ত বিবেচনা করবেন, সে প্রক্রিয়ায় তিনি নির্বাচন কমিশনারদের নিয়োগ দেবেন।

তিন. প্রধান নির্বাচন কর্মকর্তা ও অন্য কমিশনারদের নিয়োগের লক্ষ্যে সম্ভব হলে এখনই একটি উপযুক্ত আইন প্রণয়ন অথবা অধ্যাদেশ জারি করা যেতে পারে। সময় স্বল্পতার কারণে ইসি পুনর্গঠনের ক্ষেত্রে তা সম্ভব না হলে পরবর্তী নির্বাচন কমিশন গঠনের সময় যেন এর বাস্তবায়ন সম্ভব হয়, সংবিধানের নির্দেশনার আলোকে এখন থেকেই সেই উদ্যোগ গ্রহণ করা।

চার. অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য বিরাজমান সব বিধিবিধানের সঙ্গে জনগণের ভোটাধিকার অধিকতর সুনিশ্চিত করার স্বার্থে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ই-ভোটিং (ইলেক্ট্রনিক ভোটিং) চালু করা।

এসময় আওয়ামী লীগের দেয়া সুপারিশগুলোও তুলে ধরেন ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশন গঠনে রাষ্ট্রপতি চাইলে গতবারের মতো সার্চ কমিটি গঠন করতে পারেন। কমিটি সর্বসম্মতভাবে প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও অন্য কমিশনারদের নাম প্রস্তাব করবে।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, নতুন নির্বাচন কমিশনের ওপর সব দলের আস্থা ও বিশ্বাস থাকবে বলে তারা মনে করেন। তবে কারো মনে আগে থেকেই অন্য চিন্তা থাকলে তাদের কিছুই করার নেই।

আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, রাষ্ট্রপতির প্রতি আওয়ামী লীগের পূর্ণ আস্থা ও বিশ্বাস আছে। রাষ্ট্রপতি যদি তাদের দেয়া চার প্রস্তাবের কোনোটিই গ্রহণ না করেন, তাতেও কোনো আপত্তি থাকবে না।

এর আগে বিকাল ৪টায় আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বঙ্গভবনে পৌঁছে আওয়ামী লীগের প্রতিনিধি দল। সন্ধ্যা পৌনে ৬টার দিকে তারা বঙ্গবভন থেকে বেরিয়ে আসেন।